ফ্রান্সে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর সম্মানে আঘাত হানায় কুয়েতের বানিজ্যিক মার্কেট থেকে ফ্রান্সের পন্য বর্জন

ফ্রান্সে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর সম্মানে আঘাত হানায় কুয়েতের বানিজ্যিক মার্কেট থেকে ফ্রান্সের পন্য বর্জন

কুয়েত প্রতিনিধিঃ

মহানবী হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) কে ব্যঙ্গ করে আঁকা কার্টুনিস্ট প্যারিসের স্কুল শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটিকে মরণোত্তর ‘লিজিয়ন অফ অনার’ দিলেন প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁ। তিনি আরও বলেছেন, আমরা কার্টুন ত্যাগ করবনা। প্যাটী ইউরোপীয় গণতান্ত্রিক ও ধর্মনিরপেক্ষ মূল্যবোধ রক্ষা করতে গিয়ে জীবন দিয়েছেন। তাই তাকে ফ্রান্সের সর্বোচ্চ সম্মানে ভূষিত করা হল। এসবের নানা ছবি ও ভিডিও  ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। অনেকেই আবার হ্যাশ ট্যাগের সঙ্গে জুড়ে দিচ্ছেন এসব ছবি ও ভিডিও। এর প্রতিবাদে কুয়েতের বিভিন্ন মার্কেট ও শপিংমল থেকে ফ্রান্সের পণ্য সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে।

গত ১৬ অক্টোবর ফ্রান্সের প্যারিসের শহরতলি এলাকায় এক স্কুলশিক্ষককে গলা কেটে হত্যা করা হয়।

পুলিশের উদ্ধৃতি দিয়ে রয়টার্স জানায়, হামলাকারীর বয়স ১৮ বছর। তিনি চেচেন জাতিগোষ্ঠীর এবং জন্ম রাশিয়ার মস্কোতে। নিহত ওই শিক্ষক রাষ্ট্রবিজ্ঞান পড়াতেন।

‘মত প্রকাশের স্বাধীনতা ক্লাসে তিনি শিক্ষার্থীদের মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর কার্টুন দেখিয়ে ছিলেন। তারপর তাকে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনার পর ফ্রান্সের পুলিশ দেশটির অন্তত ৫০ টি মসজিদ ও মুসলিম-অধ্যুষিত এলাকায় ভয়াবহ অভিযান চালায়।

সাড়ে পাঁচ বছর আগে হজরত মুহাম্মদ (সা.) এর বিতর্কিত কার্টুন ছাপানোর পর ফ্রান্সের ব্যঙ্গাত্মক ম্যাগাজিন শার্লি এবদোতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। আবারও সেটি ছাপিয়েছে ম্যাগাজিনটি।

এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠলেও এর পক্ষে শক্ত অবস্থান নিয়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ।

ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ জানিয়েছেন, হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর বিতর্কিত কার্টুন ছাপানো নিয়ে নিন্দা জানাবেন না। একই সঙ্গে বিচ্ছিন্নতাবাদী ও এসব হামলার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দেন তিনি।

হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর কার্টুন বন্ধে ব্যবস্থা না নেয়া এবং শার্লি এবদোর পক্ষে অবস্থান নেয়ার পর মুসলিম বিশ্বে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। ক্ষোভে ফেটে পড়ছে মুসলিম দেশগুলো।

তারই বহিঃপ্রকাশ হিসেবে ফ্রান্সের সব ধরনের পণ্য বর্জনের ডাক দিয়েছে কুয়েত। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারী বিশেষ করে টুইটার ও ফেসবুকে ফ্রান্সের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ডেইলি আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত